কাবুলে সরকারি অফিসে বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহত ৪৩

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে সরকারি অফিসে বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৩ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন আরো অনেকে।

হতাহতদের মধ্যে বেশির ভাগই সরকারি কর্মচারী। এর মধ্যে সাতজন নিরাপত্তারক্ষীও রয়েছেন।

স্থানীয় সময় সোমবার (২৪ ডিসেম্বর) রাতে এ হামলা চালানো হয় বলে জানিয়েছে আফগান কর্তৃপক্ষ। দেশটির স্বাস্থ্য দফতরের কর্মকর্তারা বলেছেন, চলতি বছরে কাবুলে এটাই সবচেয়ে বড় ধরনের প্রাণহানির কোনো ঘটনা।

গত ২০ ডিসেম্বর আফগানিস্তান থেকে ৫ হাজার সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। দেশটিতে ১৪ হাজার মার্কিন সৈন্য রয়েছে। ট্রাম্পের ওই নির্দেশের পর এটাই প্রথম কোনো হামলা চালানো হয়েছে কাবুলে।

আফগানিস্তানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নাজিব দানিশ সংবাদমাধ্যমকে বলেন, নিহতদের মধ্যে সরকারি কর্মচারী ছাড়াও পুলিশ সদস্যও রয়েছেন। আর বাকি তিনজন বন্দুকধারী।

খবরে বলা হয়, এই আক্রমন শুরু হয় সোমবার বিকেলে, যখন গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ে রাখা গাড়ির বাইরে আত্মঘাতী বোমার বিস্ফোরণ ঘটে। এরপর বন্দুকধারীরা আকস্মিকভাবে আরেকটি সরকারি কার্যালয়ে ঘাপটি মেরে থাকে। এরপর রাতে গুলি চালায়। এক পর্যায়ে খবর পেয়ে সেখানে দেশটির সৈন্যরা অবস্থান। তখন সৈন্যদের লক্ষ্য করে গুলি চালায় তারা।

দেশটির একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, গুলি করলে ভবনের ভেতরে আগুন ধরে যায়। এতে ওই ভবনে থাকা মানুষের মধ্যে আতঙ্কও সৃষ্টি হয়। তবে আফগান সরকারি বাহিনী ওই ভবন থেকে তিনশ মানুষকে উদ্ধার করে নিরাপদে বাইরে নিয়ে এসেছে।

এদিকে এ ঘটনায় এখনও কোনো জঙ্গি গোষ্ঠী দায় স্বীকার করেনি। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।