চিকিৎসার জন্য বঙ্গবন্ধু মেডিকেল হাসপাতালে খালেদা জিয়া

খালেদা জিয়াকে দুপুর ১২টা ২০ মিনিটের দিকে পুরান ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডের পরিত্যক্ত কারাগার থেকে কড়া নিরাপত্তায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

পরে ওই গাড়ি থেকে নামিয়ে গোলাপী শাড়ি ও স্কার্ফ পরিহিত খালেদাকে হুইল চেয়ারে বসিয়ে নেওয়া হয় কেবিন ব্লকের ছয় তলায়। সেখানে তাকে রাখা হয়েছে ৬২১ নম্বর কেবিনে। পাশের ৬২২ নম্বর কেবিনটিও তার জন্য সংরক্ষণ করা হচ্ছে।

সেখানে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এ জে এম জাহিদ হোসেন, জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাসসহ অন্যান্য নেতা উপস্থিত হয়েছেন। এ সময় দলের নেতাকর্মীদের একটি অংশ হাসপাতালের বাইরে থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে স্লোগান দেয়।

এদিকে আজ খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নাইকো দুর্নীতি মামলার শুনানির জন্য দিন থাকলেও তিনি সেখানে হাজির হননি। এ মামলার পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ১০ এপ্রিল দিন রাখা হয়েছে।

শুনানি থেকে বেরিয়ে কারাগারের সামনে গণমাধ্যমের কাছে খালেদা জিয়ার আইনজীবী মাসুদ আহমেদ খান বলেছেন, ‘খালেদা জিয়া অসুস্থ, তাই তাঁকে আজ আদালতে হাজির করা হয়নি। এ মামলার পরবর্তী শুনানি ১০ এপ্রিল।’

অন্যদিকে দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল জানিয়েছিলেন, আজ খালেদা জিয়া হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে যাবেন। পরে এই মামলার শুনানি হবে।

বিএনপি নেত্রীর ব্যক্তিগত ব্যবহার্য জিনিসপত্র সকালেই কারাগারের একটি ট্রাকে করে নিয়ে আসা হয় হাসপাতালে। একটি খাট, দুটি সুটকেইস, চেয়ার, প্লাস্টিকের ওয়ারড্রোব, ছোট একটি ফ্রিজ দেখা যায় এসব মালপত্রের মধ্যে।

৭৪ বছর বয়সী খালেদা জিয়া আর্থ্রাইটিসসহ বয়সজনিত বিভিন্ন সমস্যায় ভুগছেন। বিভিন্ন মামলার শুনানিতে আদালতে হাজির করার সময় তাকে হুইল চেয়ারে বসে থাকতে দেখা যায়। গতবছর হাসপাতাল থেকে কারাগারে নেওয়ার সময়ও তাকে হুইল চেয়ারে দেখা গিয়েছিল।