জনপ্রিয় অভিনেতা টেলি সামাদ আর নেই

বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তী কৌতুক অভিনেতা টেলিসামাদ আর নেই (ইন্নালিল্লাহে…রাজেউন)।

ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার মৃত্যু হয়েছে তার। তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর।

বৃহস্পতিবার রাতে প্রচন্ড জ্বর থাকায় রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। পরে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে শুক্রবার রাতে আইসিওতে নেয়া হয় এ অভিনেতাকে।

হাসপাতাল থে‌কে সন্ধ্যায় টে‌লি সামা‌দের মর‌দেহ তার বাসায় নেওয়া হ‌বে। প‌শ্চিম রাজাবাজার জা‌মে মসজি‌দে মাগরিবের পর জানাজা হ‌বে।

রোববার সকাল ১১টায় এফ‌ডি‌সি‌তে আরেকটি জানাজা শেষে মু‌ন্সিগ‌ঞ্জের নয়াগাঁওয়ে পারিবারিক কবরস্থানে টেলি সামাদকে সমা‌হিত করা হ‌বে ব‌লে জা‌নি‌য়ে‌ছেন এ অ‌ভি‌নেতার ছে‌লে দিগন্ত।

টেলি সামাদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গত ডিসেম্বর মাসে বুকে ইনফেকশন নিয়ে স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন টেলি সামাদ। তখন আইসিইউতেও ছিলেন কিছু দিন।

টেলি সামাদকে এর আগে ২০১৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রে বাইপাস সার্জারি করা হয়। এরপর ২০১৭ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর তিনি কিছুটা সুস্থ হয়ে দেশে ফেরেন। কিন্তু দেশে আসার পর অক্টোবর ও নভেম্বরে দুই দফা স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল তাকে।

অসুস্থ টেলি সামাদের শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিয়ে তার চিকিৎসায় উদ্যোগী হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৪ সালে এই অভিনেতার হাতে ২০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র তুলে দেন।

মুন্সীগঞ্জ শহরের উপকন্ঠ নয়াগাঁও এলাকার সন্তান সামাদ। সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে বেড়ে ওঠা সামাদ তার বড়ভাই চারুশিল্পী আব্দুল হাইকে অনুসরণ করে ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলায়।

১৯৭৩ সালে ‘কার বউ’ দিয়ে চলচ্চিত্রে পা রাখেন সামাদ। গত চার দশকে ৬০০ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন তিনি। তার অভিনীত সর্বশেষ চলচ্চিত্র ২০১৫ সালে মুক্তি পাওয়া ‘জিরো ডিগ্রী’।

কমেডিয়ান হিসেবে দর্শক টেলি সামাদকে চিনলেও প্রায় ৪০টির বেশি চলচ্চিত্রে গানও গেয়েছেন টেলি সামাদ। ‘মনা পাগলা’ ছবির সংগীত পরিচালনাও করেন তিনি।

সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ অভিনেতা টেলি সামাদের চাচা।