তিন সিটিতে ভোট গ্রহণ শুরু

রাজশাহী, সিলেট ও বরিশাল সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে।

আজ সোমবার সকাল আটটায় এ ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে, চলবে বিকেল চারটা পর্যন্ত।তিন সিটির মোট ভোটার ৮ লাখ ৮২ হাজার ৩৬ জন।

আরো পড়ুন- রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেট সিটিতে নির্বাচন ৩০ জুলাই

তিন সিটি নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

গতকাল রোববার বিকেলেই সব কটি কেন্দ্রে ব্যালট বাক্স ও প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে। তিন নগরে পুলিশ, বিজিবি সদস্যদের পালা করে টহল শুরু হয়েছে গত শনিবার থেকেই।

প্রায় পক্ষকাল ধরে তিন সিটিতে চলেছে নির্বাচনী প্রচার। এবারই প্রথম এই তিন সিটিতে মেয়র পদে দলীয় প্রতীকে ভোট হচ্ছে।

আজ নির্বাচন হলেও নির্বাচনী প্রচারের কোলাহল শেষ হয়েছে শনিবার মধ্যরাতেই। এরপরও গতকাল থেমে ছিল না নীরব জনসংযোগ। কর্মীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট চেয়েছেন গতকাল।

আর শীর্ষ নেতারা বসেছিলেন ভোটের কৌশল প্রণয়নে। শেষ মুহূর্তের ভোটের হিসাব-নিকাশে ব্যস্ত ছিলেন তাঁরা। আজ এসব হিসাব-নিকাশের অবসান হবে।

বছর শেষে সংসদ নির্বাচনের আগে এই তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনই কার্যত নৌকা ও ধানের শীষের শেষ লড়াই।

দলীয় প্রতীকে স্থানীয় এই নির্বাচন ঘিরে কোনো সহিংসতা না ঘটলেও পাল্টাপাল্টি বক্তব্যই ছড়িয়েছে উত্তাপ; যা জাতীয় নির্বাচনের একটি আবহ তৈরি করেছে।

সচিব হেলালুদ্দীন বলেন, “অংশগ্রহণ ও প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক এ সিটি নির্বাচনের ফল জাতীয় নির্বাচনেও প্রভাব ফেলবে। প্রতিযোগিতামূলক ও অংশগ্রহণমূলক ভোট হচ্ছে, যা জাতীয় নির্বাচনেও ইতিবাচক বার্তা দেবে।”

ভোটারদের প্রত্যাশাও তাই। সিলেটের আখালিয়া এলাকার বাসিন্দা অবসরপ্রাপ্ত সেনাসদস্য শেখ জালাল আহমেদ জলিলের কথার প্রতিধ্বনি পাওয়া যায় অন্য নগরী দুটির ভোটারদের মধ্যেও।

“আমরা চাইতাছি সুষ্ঠু নির্বাচন হোক। কোনো ফিৎনা-ফ্যাসাদ যেন না হয়,” বলেন বর্ষীয়ান এই ভোটার।