ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী ২৯৮, বিএনপির ২৪২

একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপি ও তাদের জোটসঙ্গী দলগুলো মিলিয়ে ২৯৮টি আসনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী থাকছে।

বিএনপির নতুন-পুরনো জোটসঙ্গী মিলিয়ে সব দল ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করলেও একমাত্র এলডিপির অলি আহমদ নিজ দলের প্রতীক ‘ছাতা’ নিয়ে ভোটের লড়াইয়ে নামবেন।

এছাড়া কক্সবাজারে স্বতন্ত্র প্রার্থী জামায়াতে ইসলামীর নেতা হামিদুর রহমান আযাদ বিএনপির সমর্থন পাচ্ছেন।

৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় একাদশ সংসদ নির্বাচনে রোববার ছিল মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন।

এর মধ্যেই দলগুলো থেকে ৩০০ আসনে চূড়ান্তভাবে মনোনীত প্রার্থী তালিকা দুই প্রধান দলের পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনে পাঠানো হয়েছে।

আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ইসিকে জানানো হয়েছে, ২৭২ জন নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করবেন, এর মধ্যে আওয়ামী লীগের আছেন ২৫৮ জন।

নৌকার ২৭২ জন এবং জাতীয় পার্টি-জেপির দুজন বাদে বাকি আসনগুলো যে জাতীয় পার্টির জন্য, তা স্পষ্ট।

দশম সংসদ নির্বাচন বর্জনকারী বিএনপি এবার ২০ দলীয় জোটের বাইরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গড়ে নির্বাচনে অংশ নিতে যাচ্ছে।

৩০০ আসনের মধ্যে ২৪২টিতে বিএনপি নিজ দলের প্রার্থীদের মনোনয়ন দিয়েছে।

এর বাইরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক গণফোরামকে সাতটি, জেএসডিকে চারটি, নাগরিক ঐক্যকে চারটি, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগকে চারটি আসন ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

অর্থাৎ বিএনপির জাতীয় ঐক্যফ্রন্টভুক্ত শরিক দলগুলো ১৯টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। তাদের সবার প্রতীক হবে ধানের শীষ।

২০ দলীয় জোট শরিকদের মধ্যে এলডিপিকে পাঁচটি, খেলাফত মজলিশকে দুটি, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামকে তিনটি, জাতীয় পার্টিকে (কাজী জাফর) দুটি, বিজেপিকে একটি, কল্যাণ পার্টিকে একটি, এনপিপিকে একটি, লেবার পার্টিকে একটি, পিপিবিকে একটি করে আসন ছেড়ে দিয়েছে বিএনপি।

অর্থাৎ বিএনপির ২০ দলীয় জোটের এই শরিকরা ১৭টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। এদের মধ্যে এলডিপির চার নেতা ধানের শীষ প্রতীক নিলেও দলটির চেয়ারম্যান অলি আহমদ চট্টগ্রাম-১৪ আসনে ভোট করবেন নিজের দলের প্রতীকে।