নারায়ণগঞ্জে গ্যাসের আগুনে একই পরিবারের নয়জন দগ্ধ

নারায়ণগঞ্জে গ্যাসের পাইপ লাইনের ছিদ্র থেকে আগুন লেগে একই পরিবারের নয়জন দগ্ধ হয়েছে। তাদের মধ্যে নারী ও শিশু রয়েছে।

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার হকবাজার এলাকায় চারতলা ভবনের তৃতীয় তলায় আজ ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।

দগ্ধরা হলেন- শ্রীনগর নাথ চন্দ্র বর্মণ (৩৫), তার স্ত্রী মতি অর্চনা (৩২) তাদের সন্তান অনামিকা (১৫), ছেলে অর্পিত (১০)। এছাড়া বর্মণের মা ছায়া রানী (৬০), তার মেয়ে সুমিত্রা (২৭), তার ছেলে প্রমিত (১৪), তার ছোট ভাই শাওন (১০), বর্মণের বোন জামাই নারায়ণ চন্দ্র (৪০)।

বাড়ির ভাড়াটে পোশাক তৈরির দোকানের মালিক শ্রীনাথ চন্দ্র বর্মণের (৪০) জানান, ভোর সাড়ে ৫টার দিকে মোবাইল ফোনের রিংটোনের শব্দ শুনে ঘুম ভেঙে যায়। পরে উঠে লাইটের সুইচ দিতেই রুমের মধ্যে আগুন লেগে যায়।

এতে তিনিসহ ঘুমন্ত অন্যরা দগ্ধ হন। পরে চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এসে তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করে।

পরে জানা যায়, বাড়ির গৃহকর্ত্রী ঘুম থেকে উঠে চুলায় আগুন জ্বালানোর চেষ্টা করতেই পুরো ঘরে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। ধারণা করা হচ্ছে আগে থেকেই গ্যাস লাইনে লিকেজ ছিল।

চিকিৎসকের বরাত দিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) বাচ্চু মিয়া বলেন, চারজনের অবস্থা গুরুতর। অন্যদের অবস্থাও আশঙ্কামুক্ত নয়। বদ্ধ ঘরে আগুন লাগলে শ্বাসনালিতে আগুন ঢোকে। এতে শ্বাসনালি পুড়ে যায়। দগ্ধ অবস্থায় আজ সকালে নয়জনকে হাসপাতালে আনা হয়।