পদ্মা সেতুর নকশার জটিলতা কাটলো

অবশেষে নকশার জটিলতা পুরোপুরি মুক্ত হলো পদ্মা সেতু। যে কারণে সেতুটির নির্মাণকাজে বারবার বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছিল, সেই ৬ ও ৭ নম্বর পিলারের নকশা চূড়ান্ত হয়ে গেছে।

এর মধ্য দিয়ে বড় সমস্যা কাটানো সম্ভব হয়েছে বলে মনে করে পদ্মা সেতু কর্তৃপক্ষ।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের বিশেষজ্ঞ দলের প্রধান অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী বলেন, ৬ ও ৭ নম্বর পিলারের নকশার জটিলতা আগেই দূর হয়েছে। আর দুদিন আগে নতুন নকশার চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। নতুন নকশা অনুযায়ী এই দুটি পিলারের প্রতিটি ছয়টি করে অতিরিক্ত একটি পাইল মাঝখানে বসানো হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ১২ ডিসেম্বর পদ্মা সেতুর ৬ নম্বর পিলারের পাইলিংয়ের কাজ শুরু হয়। এরপর ৭ ও ৬ নম্বর পিলারে তিনটি করে মোট ছয়টি পাইলের বটম সেকশনের কাজ করা হয়। কিন্তু এসব পাইল বসাতে গিয়ে নদীর তলদেশে নরম মাটির স্তর পাওয়া যায়।

তখন দুটি পিলারের ছয়টি পাইলের টপ সেকশনের কাজ বন্ধ রাখা হয়। মাওয়া প্রান্তে কাজ বন্ধ রেখে জাজিরা প্রান্তে পদ্মা সেতুর কাজ শুরু হয়। পরে আরও ১২টি পিলারের পাইল বসানোর সময় মাটির স্তরে কাদামাটি পাওয়া যায়। এই পিলারগুলোর নম্বর হলো ৮, ৯, ১০, ১১, ১২, ২৬, ২৭, ২৯, ৩০, ৩১, ৩২ ও ৩৫। আগের নকশা অনুযায়ী এই ১৪টি পিলারের পাইলের সংখ্যা ছিল ৮৪।

সমস্যা সমাধানে কাজ শুরু করে ব্রিটিশ পরামর্শক প্রতিষ্ঠান কাউই (COWI) ইউকে লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটির বিশেষজ্ঞরা মাটি পরীক্ষার প্রতিবেদনসহ বিভিন্ন তথ্য যাচাই করেন। তাঁদের পরামর্শ অনুযায়ী, কাদামাটির পরই শক্ত মাটি না পাওয়ায় পদ্মা সেতুর ১৪টি পিলারের মধ্যে পাইলের সংখ্যা একটি করে বাড়ানো হয়। অন্যদিকে এসব পিলারে খাঁচ কাটা পাইল বসিয়ে বিশেষ ধরনের সিমেন্টের মিশ্রণে নরম মাটি শক্ত করা হয়।