ফ্রেশ ফাউন্টেন ওয়াটার পিউরিফায়ার ( এখন বেনাপোলে )
ফ্রেশ ফাউন্টেন ওয়াটার পিউরিফায়ার ( এখন বেনাপোলে )

ফ্রেশ ফাউন্টেন ওয়াটার পিউরিফায়ার ( এখন বেনাপোলে )

আপনার কেন ওয়াটার পিউরিফায়ার প্রয়োজন?

আজকালকার দিনে ওয়াটার পিউরিফায়ার বসানোর প্রয়োজনীয়টা অনস্বীকার্য্য। জলের সরবরাহে বিভিন্ন ধরনের দূষিত পদার্থ থাকে এবং এই কারণে সমস্ত বাড়িতেই একটি ওয়াটার ফিল্টার অত্যন্ত প্রয়োজন।

সর্বোত্তম স্বাস্থ্যসেবা এবং অত্যাধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে ফ্রেশ ফাউন্টেন ওয়াটার পিউরিফায়ারের বিভিন্ন ধরণের RO পিউরিফায়ার, UV এবং UF ফিল্টার এর সাহায্যে জলের অত্যাবশ্যকীয় মিনারেল সমূহ বজায় রেখে ১০০% বিশুদ্ধ পানীয় জল প্রদান করে এবং আপনার পরিবারের জন্য নিরাপদ ও স্বাস্থ্যকর পানীয় জলের প্রাপ্তি সুনিশ্চিত করে।

আপনার এলাকা ও জলে উপস্থিত দূষণকনার ধরনের উপর নির্ভর করে এবং আপনার প্রয়োজনীয়ত অনুসারে আপনি RO পিউরিফায়ার বাছাই করতে পারেন।

বেনাপোল ঠিকানাঃ 

রহমান চেম্বার ( বাইতুলস ), বেনাপোল বাজার, যশোর। মোবাইল নং: ০১৭১১-১৯৫৬৭৮।

ঢাকা ঠিকানাঃ ৯/৩১-বি & সি, ইস্টার্ন প্লাজা ৮ম তলা, সোনারগাঁও রোড, হাতিরপুল, ঢাকা ০১৭১১৪৮৬৮৯৮, ০১৭১১৫২৪৫৭৬।

কিছু প্রশ্ন এবং উত্তরঃ

বিশুদ্ধ খাবার পানি কাকে বলে?

মানুষের শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় মিনারেলস অক্ষুন্ন রেখে, পানিতে দ্রবীভূত যাবতীয় ক্ষতিকারক

যেমনঃ জীবাণু, ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাসেস সহ অজৈব, ধাতব-অধাতব বা প্রাকৃতিক খনিজ এবং রশায়নিক পদার্থ সমূহ থাকেনা সেটাই “বিশুদ্ধ খাবার পানি”। এসবের কোনটা আছে বা কোন-কোনটা না থাকলেই পানিকে বিশুদ্ধ বলা যাবেনা।

পানি ফোটালে কি বিশুদ্ধ হয়?

ফোটানো পানি একশত ভাগ বিশুদ্ধ না। কারন, এতে অধিকাংশ জীবানো মারা যায় কিন্তু এদের মৃত দেহ পানিতে মিশে থাকে। আবার কিছু কিছু জীবানো সিস্ট হিসাবে বেঁচে থাকেই।

আবার ঐ পানি কয়েক ঘন্টা সময়ে ঠান্ডা করলে জীবানো বেড়ে আবার আগের অবস্থা বা তারচেয়ে কমবেশী হয়েই যায়।

আবার, ফোটানোর সময় কিছু পানি বাষ্পীভূত হয়ে যাওয়ার ফলে ঐ পানিটুকুতে অক্ষিজেনের মাত্রা কমে যায় আর দ্রবীভূত অজৈব, ধাতব বা প্রাকৃতিক খনিজ এবং রশায়নিক পদার্থ সমূহের ঘণত্ব পুর্বের চেয়ে আরো বেড়ে যায়।

যা মানব দেহের জন্য আরো ক্ষতিকর হয়ে যায়।

টিওবয়েলের পানি কি বিশুদ্ধ?

হ্যাঁ, এইমাত্র টিওবয়েল চেপে যে পানিটুকু নিবেন তাতে কোন জীবানো, ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাসেস নেই (যে পাত্রে পানি নিয়েছেন সেটায় পূর্বে থেকে যদি না থাকে)।

কিন্তু এই পানিতে অজৈব, ধাতব বা প্রাকৃতিক খনিজ এবং রশায়নিক পদার্থ সমূহ যেমন, আয়রন, সীসা, ম্যাঙ্গানিজ, ক্যাডমিয়াম, নাইট্রাইড, আর্সেনিক মিশানো আছে কি নাই, সেটা আপনার নিশ্চিত হওয়া দরকার।

এগুলো মাইক্রোস্কোপিক, খালি চোখে দেখা যায় না।

আমাদের দেশের মাটির নিচে কয়েকশত রকম পদার্থের অস্থিত্ব আছে যা মাটি এবং পানির সাথে মিশে থাকে, এগুলোর কোন একটি থাকা অথবা মাত্রার চেয়ে একটু বেশি থাকলে সেই পানি বিশুদ্ধ থাকবে কেমনে! আপনার পানি কোন নিকটস্থ ল্যাবরেটরী থেকে পরিক্ষা করে নিশ্চিত হয়ে নিন।

সাপ্লাই পানি কি বিশুদ্ধ?

দেশের অনেক পৌরসভার সাপ্লাই পানিরই একশত ভাগ বিশুদ্ধতা নিশ্চিত করা হয়, কিন্তু ডিস্ট্রিবিউশন লাইনে এসেই আর সেই বিশুদ্ধতা থাকেনা। থাকবে কেমনে! আমরা আমাদের কন্সট্রাকশনাল নানান কাজ করতে গিয়ে তাদের ডিস্ট্রিবিউশন লাইন কেটে/ফেটে একাকার করে দিচ্ছি যে!

ওয়াটার ফিল্টার দিয়ে কি পানি বিশুদ্ধ করা যায়?

যার নামই “ছাঁকনি” তাকে দিয়ে পিওরিফিকেশন (বিশুদ্ধ-করণ) হবে কেমনে? এর জন্য দরকার, পিওরিফায়ার।

ওয়াটার পিওরিফায়ার দিয়ে কি পানি বিশুদ্ধ হয়?

হ্যাঁ, হয়। কিন্তু একটা সঠিক পিওরিফায়ার কেনার আগে আপনার দরকার সঠিকটা নির্ণয় করতে জানা এবং সচেতনতা।

একটা উন্নতমানের পিওরিফায়ার সমস্থ জীবানোর পাশাপাশি ক্ষতিকারক সমস্থ ধাতব-খনিজ বা রসায়নিক পদার্থই রিমোভ করতে পারে, আপনি যেটা কিনতে চাচ্ছেন সেটা পরিক্ষা করে কিনুন।

আর শুধু জীবানো বা শুধুমাত্র ভারী ম্যাটাল রিমোভ মানেই পানি বিশুদ্ধ না, বা যেটা করে দিচ্ছে সেটা কমপ্লিট পিওরিফায়ার না

কমপ্লিট পিওরিফায়ার কিনতে চাইলে, বিশ্বের সর্বাধূনিক REVERSE OSMOSIS (RO) প্রযুক্তির কি না এবং তার কোয়ালিটি নিশ্চিত হয়ে নিন।

প্রাকৃতিক খনিজ

ম্যাসেজঃ

আমাদের শরীরের প্রায় সত্তুর (৭০%) ভাগই পানি। কাজেই, খাবার পানি নিয়ে মোটেও অবহেলা করা উচিত হবেনা, এখনই সচেতন হোন। কৃষি কাজে মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশকের (বিষ) ব্যবহার, কল-কারখানার মারাত্মক সব রসায়নিক পদার্থ, নগরায়নের

অব্যবস্থাপনাময় বর্জ্য বৃষ্টির পানিতে মিশে একাকার হয়ে মাটির নিচে যাচ্ছে, আর মাটির নিচের জৈব-অজৈব, ধাতব-অধাতব খনিজ পদার্থ এর সাথে মিশে একাকার হয়ে যাচ্ছে।

ফলে, মাটির নিচের পানি আর কয়েক দশক আগের মতন নাই যে নিরাপদ ভাবা যায়।

বর্তমানে, কোন কোন স্থানের মাটির নিচ থেকে উত্তোলিত পানিতে এত বেশী দূষণ যে, এই পানি পান করে তারা আস্তে আস্তে মারাত্মক রোগ

যেমনঃ কিডনী ফেইলিওর, লিভার ডেমে’জ, ক্যান্সার, স্নায়ু বৈকল্য, ম্যাটাবলিক ডিজঅর্ডার ইত্যাদিতে আক্রান্ত হচ্ছে (পানিবাহিত জীবাণো/রোগের কথা নাই বললাম)।

বর্তমানে এক গবেষণায় দাবী করা হয়েছে, এদেশের অধিকাংশ মানুষের গ্যাস্ট্রিক এর জন্য এবং প্যানক্রিয়াসিস ডেমে’জ (ডায়াবেটিক) এর জন্যও এই অতি দূষিত পানি অধিকাংশে দায়ী! কাজেই, নিজে সচেতন হোন এবং অন্যকে সচেতন করুন।

নোটঃ

“পিওর-পানি” ব্রান্ডের রিভার্স অসমোসিস (বিশ্বের সর্বোন্নত) প্রযুক্তির এই পিওরিফায়ার মানুষের শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় যাবতীয়

মিনারেল পানিতে অক্ষুন্ন রেখে আয়রন, ম্যাঙ্গানিজ, ক্লোরিন, ই-কোলাই, টারবিডিটি, কলিফর্ম, আর্সেনিক, সীসা, ব্যাকটেরিয়া,

ভাইরাস, কীটনাশক, দুর্গন্ধ সহ অন্যান্য সমস্ত ক্ষতিকর পদার্থ থেকে আপনার খাবার পানিকে করবে সম্পূর্ণ নিরাপদ।

About Benapole Pratidin

Check Also

বেনাপোলে ৫০০ পিস ইয়াবাসহ নারী আটক

বেনাপোলে ৫০০ পিস ইয়াবাসহ নারী আটক

যশোরের বেনাপোল সীমান্ত থেকে ৫০০ ইয়াবাসহ জামেনা বেগম (৪৫) নামে একজন ইয়াবা ব্যবসায়ীকে আটক করেছে বর্ডার …