বেনাপোলে দুই তরুণীকে গণধর্ষণ, আটক ৬

যশোরের বেনাপোল সীমান্তে দুই তরুণীকে আটকে ধর্ষণের অভিযোগে ছয় ধর্ষককে আটক করেছে বেনাপোল পোর্ট থানার পুলিশ।

রবিবার সন্ধ্যার দিকে পুটখালী সীমান্ত এলাকা থেকে এলাকাবাসী সহযোগিতায় পুলিশ তাদের আটক করে। উদ্ধার হয়েছে দুই তরুণী।

এদের একজনের বাড়ি কুষ্টিয়া জেলায় অপরজনের বাড়ি চাঁদপুর জেলায়।

আটক ধর্ষকরা হলো, বেনাপোল পোর্ট থানার পুটখালী গ্রামের আলমের ছেলে সোহেল (৩০), আজগারের ছেলে আরিফ (২৯), আব্দুল খালেকের ছেলে আব্দুল্লা (২৭), মোর্শেদের ছেলে শিমুল (৩৫), আয়ুব বিশ্বাসের ছেলে প্লাবন (২৮), সামছুর কসাইয়ের ছেলে মোরশেদ (৩৫)। রাফিউলকে (৩২) নামে আরও এক ধর্ষক পলাতক থাকায় তার পিতা ছাদেককে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, ভারতে স্বজনদের বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ২ তরুণী দালালদের মাধ্যমে পুটখালী গ্রামে আসে। এরপর তাদের রাতে শাহ আলম বিশ্বাসের বাড়িতে আটকে রেখে গভীর রাতে পুকুরপাড়ে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

বেনাপোল পোর্ট থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম বলেন, অবৈধপথে ভারতে যাওয়ার উদ্দেশে আসা ২ তরুণীকে পুটখালী গ্রামের ৭ ধর্ষক সারারাত পালাক্রমে ধর্ষণ করে জানতে পেরে কৌশলে গ্রামবাসীর সহযোগিতায় মীমাংসা করার কথা বলে ধর্ষকদের পুটখালী গ্রামের একটি বাড়িতে হাজির করে আটক করা হয়।

তাদের বিরুদ্ধে বেনাপোল পোর্ট থানায় মামলা হয়েছে। ধর্ষণের শিকার ২ তরুণীকে উদ্ধার করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।