মোট আক্রান্ত

৩৮,২৯২

সুস্থ

৭,৯২৫

মৃত্যু

৫৪৪

  • জেলা সমূহের তথ্য
  • ঢাকা ১৪,৯৭৪
  • নারায়ণগঞ্জ ১,৯১৬
  • চট্টগ্রাম ১,৯১০
  • মুন্সিগঞ্জ ৬৫৫
  • কুমিল্লা ৬৩৭
  • গাজীপুর ৬০৯
  • কক্সবাজার ৪৩৫
  • নোয়াখালী ৪১৭
  • ময়মনসিংহ ৪০০
  • রংপুর ৩৮৬
  • কিশোরগঞ্জ ২৩১
  • সিলেট ২১৩
  • জামালপুর ২০৬
  • নেত্রকোণা ২০৬
  • নরসিংদী ১৭৫
  • গোপালগঞ্জ ১৬৫
  • হবিগঞ্জ ১৬১
  • ফরিদপুর ১৪৭
  • যশোর ১৪২
  • বগুড়া ১৩৭
  • জয়পুরহাট ১৩৫
  • মানিকগঞ্জ ১৩০
  • দিনাজপুর ১১৫
  • মাদারীপুর ১০৭
  • চাঁদপুর ১০৭
  • লক্ষ্মীপুর ১০৪
  • নওগাঁ ১০২
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১০১
  • সুনামগঞ্জ ৯৭
  • ফেনী ৯৬
  • মৌলভীবাজার ৯৪
  • নীলফামারী ৯০
  • শরীয়তপুর ৮৯
  • চুয়াডাঙ্গা ৮৮
  • শেরপুর ৮১
  • বরিশাল ৬৮
  • রাজবাড়ী ৬৬
  • কুড়িগ্রাম ৬৪
  • খুলনা ৬৪
  • রাঙ্গামাটি ৬৩
  • ঠাকুরগাঁও ৬১
  • রাজশাহী ৫৪
  • টাঙ্গাইল ৫১
  • নাটোর ৫১
  • ঝিনাইদহ ৪৮
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৪৬
  • বরগুনা ৪৪
  • পঞ্চগড় ৪০
  • কুষ্টিয়া ৩৯
  • সাতক্ষীরা ৩৮
  • পাবনা ৩৭
  • পটুয়াখালী ৩৬
  • গাইবান্ধা ৩৫
  • লালমনিরহাট ৩১
  • ঝালকাঠি ২৭
  • খাগড়াছড়ি ২৬
  • নড়াইল ২৫
  • মাগুরা ২৪
  • পিরোজপুর ২২
  • বান্দরবান ২২
  • বাগেরহাট ১৭
  • সিরাজগঞ্জ ১৬
  • ভোলা ১৪
  • মেহেরপুর
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট

ভারতকে হারিয়ে বাংলাদেশের স্মরণীয় জয়

মুশফিকের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টিতে প্রথমবার হারিয়ে দিল ভারতকে।

১৪৯ রানের টার্গেটে ব্যাটিং করতে নেমে ৩ বল বাকি রেখে বাংলাদেশ জিতেছে ৭ উইকেটে।

গত কয়েক বছরে বেশ কবার কাছে গিয়েও হেরেছে বাংলাদেশ। মুশফিক নিজে পারেননি কাজ শেষ করতে। এবার সেই ভুলের পুনরাবৃত্তি হয়নি। ৪৩ বলে ৬০ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে মুশফিক ফিরেছেন দলের জয় সঙ্গে নিয়ে।

শেষ ২ ওভারে যখন প্রয়োজন ২২ রান, ১৯তম ওভারের শেষ চার বলে খলিল আহমেদকে টানা চার মেরে দলকে জয়ের কাছে নিয়ে যান মুশফিক।

এর আগে টি-টোয়েন্টির হাজারতম ম্যাচে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে স্বাগতিকরা তোলে ১৪৮ রান।

অভিষিক্ত মোহাম্মদ নাঈম ও সৌম্য সরকার প্রথম ৬ ওভারে ৪৫ রান এনে দিয়েছেন। জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় গতিতেই তখনো এগচ্ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু যুজবেন্দ্র চাহাল বোলিংয়ে এসেই বদলে দিলেন সব। ২৮ বলে ২৬ রান করে ফিরলেন নাঈম। ৫৪ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারাল বাংলাদেশ।Image

চাহালের লেগ স্পিন থেকে রানই বের করতে পারছিলেন না মুশফিকুর রহিম ও সৌম্য। এর মাঝে একটি জোরালো এলবিডব্লুর আবেদন উঠেছিল মুশফিকের বিপক্ষে। আম্পায়ার তাতে সাড়া দেননি, ভারতও রিভিউ নেয়নি। পরে রিপ্লেতে দেখা গেছে, রিভিউ নিলেই ড্রেসিংরুমে ফিরতে হতো মুশফিককে।

১৬তম ওভারে মাত্র ৬ রান আসায় চাপ সৃষ্টি হয়েছিল। খলিল আহমেদের প্রথম বলেই হুক করে ছক্কা মারলেন। কিন্তু পরের দুই বলেই আবার ডট। পরের দুই বলে তিন রান এল। ষষ্ঠ বলেই আবার হতাশায় ডুবল বাংলাদেশ। উইকেটের পেছনে বল পাঠাতে গিয়ে গতিতে বিভ্রান্ত হয়ে বোল্ড সৌম্য।

৩৫ বলে ৩৯ রানের ইনিংসে দুই ছক্কার সঙ্গে এক চার ছিল তাঁর। ১৮তম ওভারের তৃতীয় বলে আবার জীবন পেলেন মুশফিক। সীমানায় তাঁর সহজ ক্যাচ হাতছাড়া করে চার বানিয়ে দিয়েছেন ক্রুনাল পান্ডিয়া। এবারও অভাগা বোলারের নাম চাহাল। ৩৮ রানে আরেকবার জীবন পেলেন মুশফিক। চাহালের সে ওভারে ১৩ রান পেয়েছে বাংলাদেশ।

Leave a Reply