যশোরে এমপি’র বাড়িসহ ৬ স্থানে বোমা হামলা

যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদের বাসভবন ও আওয়ামী লীগ নেতাদের বাসভবন এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ ছয়টি স্থানে বোমা হামলা করেছে দুর্বৃত্তরা।

শনিবার মধ্যরাতে (আড়াই টার দিকে) পরপর এই বোমা হামলা হয়েছে। এতে কেউ হতাহত হয়নি। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে বিস্ফোরিত বোমার আলামত ও বোমার কোটা উদ্ধার করেছে। ঘটনার প্রতিবাদে রোববার দুপুরে বিক্ষোভ মিছিল করেছে আওয়ামী লীগ।

যশোর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অপূর্ব হাসান জানিয়েছেন, শনিবার রাত আড়াইটার দিকে যশোর-৩ আসনের এমপি কাজী নাবিল আহমেদের বাসভবনে বোমা হামলা হয়েছে। এরপর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন চাকলাদারের মালিকাধীন পাঁচ তারকা মানের হোটেল জাবিরে বোমা বিস্ফোরণ হয়।

এর আগে শাহীন চাকলাদারের চাচাতো ভাই যুবলীগ নেতা তৌহিদ চাকলাদার ফন্টুর বাসভবনে বোমা হামলা করা হয়। এরপর চাকলাদার ফিলিং স্টেশনে বোমা হামলার খবর পান তারা।

এর আগে শহর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইমাম হাসান লাল ও যুবলীগ নেতা রাজিবুল আলমের বাসভবনে বোমা বিস্ফোরণ হয়েছে। প্রত্যেক স্থান থেকে দুইটি করে ১২টি বোমার কোটা ও বিস্ফোরিত বোমার আলামত উদ্দার করা হয়েছে।

ওসি বলেন, কারা বোমা হামলা করেছে সেটা তারা তদন্ত করছেন। এ ঘটনায় কেউ আটক হয়নি।

ক্ষতিগ্রস্ত চাকলাদার ফিলিং স্টেশনের ক্যাশিয়ার ইলিয়াস হোসেন জানান, রোববার ভোর চারটার দিকে এক দল দুর্বৃত্ত মুখে কাপড় বেধে ফিলিং স্টেশনে এসে বোমা হামলা করে। তারা সেখানে অবস্থানরত পরিবহন ভাংচুর ও ফিলিং স্টেশনের গ্লাস ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে। এক পর্যায়ে অস্ত্র ঠেকিয়ে ক্যাশ বক্স থেকে এক লাখ ৫০ হাজার ৫১২ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা।

এদিকে, ঘটনার প্রতিবাদে রোববার দুপুরে শহরে বিক্ষোভ ও পথসভা করেছে আওয়ামী লীগ। মিছিলটি শহর ঘুরে গাড়িখানা রোডে আওয়ামী লীগের জেলা কার্যালয়ের সমানে এসে পথসভা হয়।

এতে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর জহুরুল ইসলাম, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বিপুল ও বর্তমান সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী। নেতৃবৃন্দ সন্ত্রাসীদের আটকে ২৪ ঘণ্টা সময় বেধে দিয়েছেন।