যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর ব্যাংক হিসাব তলব

যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর ব্যাংক হিসাবের তথ্য তলব করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকে অবস্থিত বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) থেকে গতকাল বিভিন্ন ব্যাংকে এ-সংক্রান্ত চিঠি পাঠানো হয়।

সাধারণত অর্থপাচার, অবৈধ লেনদেন, মানি লন্ডারিংসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক অর্থের উৎস অনুসন্ধানে কাজ করে এ ইউনিট। চলমান মাদক ও দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের মধ্যে যুবলীগ নেতার ব্যাংক হিসাবের তথ্য তলব করা হলো।

জানা গেছে, ওমর ফারুক চৌধুরীর অ্যাকাউন্টে অস্বাভাবিক কোনো লেনদেন হয়েছে কি-না তা খতিয়ে দেখা হবে। আবার ব্যাংকগুলোও সব নিয়ম মেনে অ্যাকাউন্ট পরিচালনা করেছে কি-না তা পর্যালোচনা করবে বিএফআইইউ।

এজন্য ওমর ফারুক চৌধুরীর নামে বর্তমানে বা এর আগে কোনো হিসাব পরিচালিত হয়ে থাকলে তা জানাতে বলা হয়েছে। হিসাব খোলার ফরম, কেওয়াইসি, লেনদেন প্রোফাইলসহ যাবতীয় তথ্য পাঠাতে বলা হয়েছে।

বিএফআইইউ সব ব্যাংক থেকে তথ্য সংগ্রহ করে পর্যালোচনাসহ তা সংশ্নিষ্ট গোয়েন্দা সংস্থার কাছে পাঠাবে বলে জানা গেছে।

শুরুর দিকে দুর্নীতি ও অবৈধ ক্যাসিনোর বিরুদ্ধে চলমান অভিযানের বিরোধিতা করে বক্তব্য দেন ওমর ফারুক চৌধুরী। চলমান অভিযানকে ‘রাজনীতির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র’ হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি। যদিও পরে তিনি সুর নরম করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, অপরাধী যেই হোক তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা হবে। দল, আত্মীয়, পরিবার কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না।

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ ক্যাসিনোর বিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছে র‌্যাব। ক্লাবগুলোতে ক্যাসিনো পরিচালনার সঙ্গে যুবলীগ নেতাদের সংশ্নিষ্টতার বিষয়টি জানতে পেরেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

ক্যাসিনো পরিচালনার অভিযোগে এরই মধ্যে ঢাকা ও চট্টগ্রামের অনেককে আটক করা হয়েছে। অভিযানের প্রথম দিন গত ১৮ সেপ্টেম্বর গুলশান-২-এর নিজ বাসা থেকে যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে আটক করে র‌্যাব।

চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজির অভিযোগে গত ২০ সেপ্টেম্বর যুবলীগ নেতা এসএম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীমকে গ্রেফতার করা হয়। র‌্যাবের হাতে আটক হয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালক ও মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের ডিরেক্টর ইনচার্জ লোকমান হোসেন ভূঁইয়া, কলাবাগান ক্রীড়া চক্রের সভাপতি ও বাংলাদেশ কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য শফিকুল আলম ফিরোজ, ঢাকার গেণ্ডারিয়া থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এনামুল হক এনু এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রূপন ভূঁইয়াসহ ২ শতাধিক ব্যক্তি।

Leave a Reply

shares