সব সম্পত্তি ট্রাস্টে দিয়ে দিলেন এরশাদ

রোববার বিকালে পাঁচ সদস্যের এই ট্রাস্ট গঠন করা হয়েছে বলে জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য খালেদ আক্তার এবং দলটির উপ দপ্তর সম্পাদক এম এ রাজ্জাক খান জানিয়েছেন।

বোর্ড সদস্যদের মধ্যে আছেন এইচ এম এরশাদ, তাঁর ছেলে এরিক এরশাদ, ব্যক্তিগত সচিব মেজর (অব.) খালেদ আখতার, আত্মীয় মুকুল এবং ব্যক্তিগত কর্মী মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর।

তবে ট্রাস্টি বোর্ডে নিজের স্ত্রী রওশন এরশাদকে অন্তর্ভুক্ত করেননি এরশাদ।

এর আগের দিন শনিবার এক ‘সাংগঠনিক নির্দেশে’ এরশাদ ঘোষণা দেন, তাঁর অনুপস্থিতিতে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করবেন দলের কো–চেয়ারম্যান জি এম কাদের।

এর আগের দিন শুক্রবার কো–চেয়ারম্যানের পদ ফিরে পান কাদের। অথচ দুই সপ্তাহ আগে গত ২২ মার্চ কাদেরকে কো-চেয়ারম্যানের পদ থেকে সরিয়ে দিয়েছিলেন এরশাদ। ।

বেশ কিছু দিন ধরে শারীরিকভাবে অসুস্থ এরশাদ গত ৩০ ডিসেম্বরের একাদশ সংসদ নির্বাচনে একদিনও প্রচারে যাননি। নির্বাচনের আগে চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে গিয়েছিলেন তিনি। সেখান থেকে ফেরার পর নির্বাচনের দিন ভোট দিতেও নির্বাচনী এলাকা রংপুরে যাননি এরশাদ।

গত ৬ জানুয়ারি আইনপ্রণেতা হিসেবে শপথ নেন এরশাদ, তবে তিনি সংসদে গিয়েছিলেন হুইল চেয়ারে চড়ে।

এরপর ২০ জানুয়ারি আবার সিঙ্গাপুর গিয়েছিলেন এরশাদ। তখন জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, রক্তে হিমোগ্লোবিন ও লিভারের সমস্যায় ভুগছেন তিনি।