মোট আক্রান্ত

৩৮,২৯২

সুস্থ

৭,৯২৫

মৃত্যু

৫৪৪

  • জেলা সমূহের তথ্য
  • ঢাকা ১৪,৯৭৪
  • নারায়ণগঞ্জ ১,৯১৬
  • চট্টগ্রাম ১,৯১০
  • মুন্সিগঞ্জ ৬৫৫
  • কুমিল্লা ৬৩৭
  • গাজীপুর ৬০৯
  • কক্সবাজার ৪৩৫
  • নোয়াখালী ৪১৭
  • ময়মনসিংহ ৪০০
  • রংপুর ৩৮৬
  • কিশোরগঞ্জ ২৩১
  • সিলেট ২১৩
  • জামালপুর ২০৬
  • নেত্রকোণা ২০৬
  • নরসিংদী ১৭৫
  • গোপালগঞ্জ ১৬৫
  • হবিগঞ্জ ১৬১
  • ফরিদপুর ১৪৭
  • যশোর ১৪২
  • বগুড়া ১৩৭
  • জয়পুরহাট ১৩৫
  • মানিকগঞ্জ ১৩০
  • দিনাজপুর ১১৫
  • মাদারীপুর ১০৭
  • চাঁদপুর ১০৭
  • লক্ষ্মীপুর ১০৪
  • নওগাঁ ১০২
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১০১
  • সুনামগঞ্জ ৯৭
  • ফেনী ৯৬
  • মৌলভীবাজার ৯৪
  • নীলফামারী ৯০
  • শরীয়তপুর ৮৯
  • চুয়াডাঙ্গা ৮৮
  • শেরপুর ৮১
  • বরিশাল ৬৮
  • রাজবাড়ী ৬৬
  • কুড়িগ্রাম ৬৪
  • খুলনা ৬৪
  • রাঙ্গামাটি ৬৩
  • ঠাকুরগাঁও ৬১
  • রাজশাহী ৫৪
  • টাঙ্গাইল ৫১
  • নাটোর ৫১
  • ঝিনাইদহ ৪৮
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৪৬
  • বরগুনা ৪৪
  • পঞ্চগড় ৪০
  • কুষ্টিয়া ৩৯
  • সাতক্ষীরা ৩৮
  • পাবনা ৩৭
  • পটুয়াখালী ৩৬
  • গাইবান্ধা ৩৫
  • লালমনিরহাট ৩১
  • ঝালকাঠি ২৭
  • খাগড়াছড়ি ২৬
  • নড়াইল ২৫
  • মাগুরা ২৪
  • পিরোজপুর ২২
  • বান্দরবান ২২
  • বাগেরহাট ১৭
  • সিরাজগঞ্জ ১৬
  • ভোলা ১৪
  • মেহেরপুর
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট

সাতক্ষীরা উপকূলে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ আরও সামান্য উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে আজ রোববার ভোর পাঁচটায় সুন্দরবনের নিকট দিয়ে পশ্চিমবঙ্গ-খুলনা উপকূল অতিক্রম শেষ করেছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের বিশেষ বুলেটিনে এই তথ্য জানানো হয়।

রোববার ভোররাত থেকে সাতক্ষীরার উপকূলীয় এলাকায় শুরু হয় ঝড়ো হাওয়া। ঝড়ে উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের ঘরবাড়ির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। কাচা ঘরবাড়ি মাটির সঙ্গে মিশে গেছে। রাস্তাঘাটে গাছপালা উপড়ে পড়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। মাছের ঘের ভেসে গেছে। এখনো উপকূলে চলছে বুলবুলের তাণ্ডব।

উপকূলীয় শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালীনি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ভবতোষ মন্ডল বলেন, ঝড়ে সব কিছু লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। রাস্তাঘাটে গাছপালা পড়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে। মানুষের মাটির ঘরবাড়ি একটিও নেই। মানুষের মাছের ঘের ভেসে গেছে। প্রচণ্ড বৃষ্টির সঙ্গে ঝড়ো হাওয়া ভোররাত থেকে শুরু হয়ে এখনো চলছে। ঝড় শেষ হলে বিস্তারিত জানা যাবে।

তিনি আরও বলেন, ইউনিয়নে দুই হাজারেরও বেশি কাচামাটির ঘরবাড়ি ছিল। একটিও নেই। ধারণা করছি, মাটির নিচে অনেকে চাপা পড়ে গেছে। মাটির নিচে চাপা পড়া মানুষদের খোঁজা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত কারও মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি।

ঘূর্ণিঝড় অতিক্রমকালে চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, পিরোজপুর ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা জেলাসমূহ এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহে ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণসহ ঘণ্টায় ৮০-১০০ কিলোমিটার বেগে দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। ঘূর্ণিঝড় ও মুন ফেজ এর প্রভাবে এসব এলাকার নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৪-৫ ফুট অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে।

Leave a Reply