হলি আর্টিজান মামলার রায় ২৭ নভেম্বর

রাজধানীর গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্ট অ্যান্ড বেকারিতে জঙ্গি হামলার মামলার রায় আগামী ২৭ নভেম্বর ঘোষণা করবেন ট্রাইব্যুনাল।

আজ রোববার ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মজিবুর রহমান মামলাটির যুক্তিতর্কের শুনানি শেষে রায় ঘোষণার এ তারিখ ঠিক করেন।

এর আগে আজ মামলাটিতে পাঁচজন আসামির পক্ষে তাদের আইনজীবীরা যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন এবং নির্দোষ দাবি করে তাদের বেকসুর খালাস প্রার্থনা করেন।

নিজেদের নির্দোষ দাবি করা আসামিরা হলেন, নব্য জেএমবির অস্ত্র ও বিস্ফোরক শাখার প্রধান মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজান, জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব ওরফে রাজীব গান্ধী, মামুনুর রশীদ ওরফে রিপন, শফিকুল ইসলাম ওরফে খালেদ ও হামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারী আবদুস সবুর খান ওরফে সোহেল মাহফুজ।

মামলায় গত ১৩ নভেম্বর যুক্তি উপস্থাপনে আসামি হামলার মূল সমন্বয়ক বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কানাডার নাগরিক তামিম চৌধুরীর সহযোগী আসলাম হোসেন ওরফে রাশেদ ওরফে আবু জাররা ওরফে র‌্যাশ, ঘটনায় অস্ত্র ও বিস্ফোরক সরবরাহকারী নব্য জেএমবি নেতা হাদিসুর রহমান সাগর ও জঙ্গি রাকিবুল হাসান রিগ্যানকেও নির্দোষ বলে দাবি করেন তাদের আইনজীবীরা। রোববার যুক্তি উপস্থাপনের আগে এই আট আসামিকেই ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়।

এর আগে গত ৬ ও ৭ নভেম্বর রাষ্ট্রপক্ষ যুক্তি উপস্থাপন শেষে আট আসামিরই মৃত্যুদণ্ডের শাস্তি দাবি করেন। মামলাটিতে ১১৩ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে গত ৩০ অক্টোবর আসামিদের আত্মপক্ষ শুনানি হয়। ওইদিন আট আসামিই নিজেদের নির্দোষ দাবি করে বেকসুর খালাস প্রার্থনা করেন।

২০১৬ সালের ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গিরা হামলা চালিয়ে ১৭ বিদেশিসহ ২০ জনকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করেন। জঙ্গিদের গ্রেনেড হামলায় পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) সহকারী কমিশনার (এসি) রবিউল ইসলাম ও বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সালাউদ্দিন নিহত হন।

Leave a Reply

shares