ভারত থেকে দেশে ফিরল অসহায় মা ও শিশু সন্তান

আইনি জটিলতায় পড়ে তিন মাসের বেশি সময় ভারতে অবস্থানের পর বাংলাদেশি উপ-হাইকমিশনের সহযোগিতায় ছেলে শাওনকে (৩) নিয়ে দেশে ফিরেছেন রোকসানা খাতুন (৩০) নামে এক নারী।

শুক্রবার (১১ জানুয়ারি) সন্ধ্যা ৬টায় কলকাতায় অবস্থিত বাংলাদেশি উপ-হাইকমিশনের কাউন্সিলর ও দুতালয়ের প্রধান বিএম জামাল হোসেন তাদের বাংলাদেশি ‘সার্চ’ মানবাধিকার সংস্থার কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান রুবেলের হাতে তুলে দেন।

যশোরের ফতেপুর গ্রামের বিল্লাত আলীর স্ত্রী রোকসানা খাতুন দেশে ফিরে জানান, ভালো কাজের প্রলোভনে তার ভাই ভারতে গিয়ে দিল্লীতে পুলিশের হাতে আটক হন। ভাইকে ছাড়ানোর জন্য তিনি পাসপোর্টে দিল্লী যান। কিন্তু অসতর্কতায় ভারতে এক সঙ্গে তিন মাসের বেশি সময় অবস্থানের ওপর নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি ভুলে যান তিনি।

পরে দেশে ফেরার জন্য ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশনে এলে তারা এক সঙ্গে ৯০ দিন পার করার অপরাধে প্রতি পাসপোর্টে ২১ হাজার ৬৬০ রুপি করে জরিমানা পরিশোধ করতে বলেন। কিন্তু তার কাছে কোনো টাকা না থাকায় ছেলেকে নিয়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছিলেন তিনি।

পরে বাংলাদেশি উপ-হাইকমিশন খবর পেয়ে ভারত সরকারকে দুই পাসপোর্টে ৪৩ হাজার ২০০ রুপি জরিমানা পরিশোধ করে মা ও ছেলেকে দেশে ফিরতে সহযোগিতা করেন।

এ মানবিক কাজের জন্য উপ-হাইকমিশনের কর্মকর্তাদের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন রোকসানা।

ভারত সরকারের নতুন নিয়ম অনুযায়ী, বাংলাদেশি পাসপোর্ট যাত্রী (মুসলিম সম্প্রদায়) যারা ট্যুরিস্ট ভিসায় ভারতে গিয়ে এক সঙ্গে ৯০ দিনের বেশি অবস্থান করবে তাদের পাসপোর্ট প্রতি ভারত সরকারকে ২১ হাজার ৬০০ রুপি ও বাংলাদেশি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পাসপোর্ট যাত্রী প্রতি ১শ’ রুপি জরিমানা নির্ধারণ করা হয়েছে।